1. admin@drstisimana.com : admin :
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৬ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
কপিলমুনি প্রেসক্লাবে পবিত্র ঈদ-ই মিলাদুন্নবী ও প্রতিষ্ঠাতা শেখ সেফারুল ইসলামের রুহের মাগফেরাত কামনা। ঢাকা-গাজীপুর সড়ক পথে আসছে যুগান্তকারী পরিবর্তন। জনপ্রিয়তার শীর্ষে সাবেক চেয়ারম্যান, রুহুল কাদের মানিক। দলিয় পদ হারাচ্ছেন গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর। শ্রীনগর বাঘড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা। পাইকগাছার রাড়ুলী ডাকাতি মামলার আসামী পুলিশের হাতে আটক। সিরাজগঞ্জে কাজিপুরে হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের স্মারকলিপি প্রদান। অভাবের সাথে যুদ্ধ করে ক্লান্ত, স্ট্যাটাস দিয়ে বিজিবি সদস্যের আত্মহত্যা। ঝিনাইদহে অস্ত্র ও ফেন্সিডিলসহ গ্রেফতার ০১ জন। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাখি উদ্ধার করলো শিবগঞ্জ উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

শরণখোলায় পানির হাহা কার।

নাজমুল ইসলাম শরনখোলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময়: মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১
  • ৪৫ বার পড়া হয়েছে:

 

বাগেরহাটের শরণখোলায় টিউবওয়েল চলে না, মাটির নিচেও লবণজল। হয় আকাশের জল, না হয় পুকুরের পানি— এই ব্যবস্থা সেখানে চলে আসছে যুগ যুগ ধরে। পুকুরের পানি উঠিয়ে ইট-বালুর ট্যাংকে রেখে পানি নিরাপদ করা হয়।
এটাকে ছেলেমেয়ে-প্রবীণ সবাই বলে- পিএসএফ (পন্ড স্যানড ফিল্টার)। নিরাপদ পানীয় জল সংগ্রহের জনপ্রিয় আর সাশ্রয়ী এই ব্যবস্থা আমাদের উপকূলের প্রায় সব জেলা-উপজেলায় আছে। তবে ব্যবস্থাপনার কারণে অধিকাংশই অকেজো থাকে সারা বছর।এ বছরের হিসাব অন্য রকম—বৃষ্টি একেবারেই নেই, তাই পুকুরে পানি নেই। ফলে পিএসএফগুলো চলছে না। গত বছরের মার্চ মাসে ১০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছিল। কিন্তু এবার পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন।

করোনাকালে কষ্টেসৃষ্টে খাবার জোগানো গেলেও পানীয় জল মিলছে না দিন আনা দিন খাওয়া মানুষদের। শরণখোলায় পানি ব্যবসায়ীরা এখন ১০ লিটার পানি বিক্রি করছেন ৪০ টাকায়। অর্থাৎ প্রতি লিটার ৪ টাকা।অথচ লাভ রেখেও প্রতি লিটার পানি ১ টাকায় বিক্রি করা সম্ভব। শরণখোলার সাউথখালীর বগিতে একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা এই সাশ্রয়ী দরে পানি বিতরণের কাজ করছে। ‍রায়েন্দায় (উপজেলা সদর এলাকা) আরেকটি সংগঠন বাড়ি বাড়ি পানি পৌঁছে দিচ্ছে প্রতি লিটার ২ টাকা দরে।রিভার্স অসমোসিস প্রক্রিয়ায় খাল-নালার লবণাক্ত পানিকে লবণমুক্ত করে এরা মানুষকে পানের পানি দিচ্ছে। পানের পানির বাইরেও নানা কাজে আমাদের লবণমুক্ত পানির প্রয়োজন হয়। এমনকি গবাদি প্রাণীও লবণাক্ত পানিতে অভ্যস্ত নয়।পানিসংকটের কারণে মানুষ বাধ্য হয়ে লবণমুক্ত পানির ব্যবহার সীমিত করে ফেলছে। অনেকে মাত্র ২ কলস বা বড়জোর ১০ লিটার পানি দিয়ে গোটা পরিবারের প্রয়োজন মেটাতে বাধ্য হচ্ছে। অথচ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত মান অনুযায়ী একজন মানুষের এক দিনে পানের জন্য প্রয়োজন ৩ লিটার পানি। পরিবারে ৫ জন সদস্য থাকলে শুধু পানের জন্যই লাগবে ১৫ লিটার পানি।এই হিসাবের বাইরে আছে ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য, রান্নাবান্নার জন্য মানসম্মত পানি। সেই হিসাবে পাঁচজনের একটা পরিবারে প্রতিদিন কমপক্ষে ৪০ থেকে ৭৫ লিটার নিরাপদ পানির প্রয়োজন। বলা বাহুল্য, সেই কপাল দক্ষিণের মানুষের নেই।মাত্রাতিরিক্ত হারে লবণাক্ত পানি পান করা নিয়ে অনেক গবেষণা হয়েছে। গবেষকেরা এখনো গবেষণা জারি রেখেছেন। আইসিডিডিআরবির সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, লন্ডনের ইম্পিরিয়াল কলেজসহ আরও অনেক জানা-অজানা প্রতিষ্ঠান।

২০১৬ সালে এ রকম এক গবেষণার ফলাফল জানাতে গিয়ে ইম্পিরিয়াল কলেজের সাবসারফেস হাইড্রোলজির রিডার অ্যাড্রিয়ান বাটলার বলেছিলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৫ গ্রাম লবণ খাওয়ার পরামর্শ দেয়।

কিন্তু উপকূলের মানুষ কিছু ক্ষেত্রে এর ২০০ গুণ লবণ খায়। বেশি লবণ খাওয়ার সঙ্গে উচ্চ রক্তচাপের সম্পর্ক রয়েছে, যা হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। যদি উপকূলের মানুষ কম লবণাক্ত পানি (যেমন বৃষ্টির পানি) পান করে, তাহলে তাদের রক্তচাপ কমিয়ে আনা সম্ভব। খাওয়ার পানিতে অতিরিক্ত লবণাক্ততা গর্ভবতী মায়েদের উচ্চ রক্তচাপ বৃদ্ধির মূল কারণ। উচ্চ রক্তচাপ ও প্রি-একলাম্পসিয়ার মধ্যে সম্পর্ক আছে।দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে পানি সংগ্রহ করতে হয় বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার নারীদের।সাত মাসের বৃষ্টির এই দেশে উপকূলবাসী ভালো করেই জানে তাদের জন্য বৃষ্টির পানিই সহজ আর নিরাপদ। গবেষকদের উপসংহারও তাই। তবে তাঁদের বাতলানো ঢঙে বৃষ্টির পানি ধরে রেখে তা ব্যবহার করার খরচ অনেক সময় সাধারণের নাগালের বাইরে থাকে যায়। কিন্তু কমিউনিটি বা সামাজিক ব্যবস্থাপনায় এটা সম্ভব। শরণখোলার রায়েন্দাবাজারের কাছে ছোট্ট সামাজিক সংগঠন অগ্রদূত ক্লাব সেটা করে দেখিয়েছে। ২০০৭ সালে সিডরের পর এলাকার এটাই ছিল একমাত্র নিরাপদ পানির উৎস। সেই উৎস এবার শুকিয়ে গেছে। তাদের এক বিঘা জমির পুকুরে পানি নেই।অগ্রদূত ক্লাবের আইয়ুব জানালেন- এত দিন তিনি সবাইকে পানি দিয়েছেন, এখন তাঁদেরই পানির জন্য ট্যাঁকের পয়সা নিয়ে ছুটতে হচ্ছে দিগ্‌বিদিক।মিষ্টি বা সামান্য লবণাক্ত পানির উৎসগুলো শুকিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বহমান নদীগুলোতেও লবণের মাত্রা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। শরণখোলার ভোলা নদী শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেলেও বলেশ্বর নদের তেজ এখনো আছে।বলেশ্বর নদ বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বরগুনা, পিরোজপুর, শরণখোলা হয়ে ১৪৬ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে সুন্দরবন ডিঙিয়ে সাগরে মিশেছে। বলেশ্বরের মিষ্টি পানির একটা প্রধান উৎস ছিল মধুমতী নদী।মধুমতী নাজিরপুর উপজেলার ঝনঝনিয়া থেকে পিরোজপুর হয়ে বলেশ্বরে মিশেছে। ফারাক্কার কারণে মধুমতী, গড়াই আর তাদের মা নদী পদ্মা এখন হাড়-জিরজিরে পানিপ্রবাহ মাত্র। তাই জোয়ারে আসা সাগরের নোনাপানি আবার ভাটার সময় সাগরে ফিরিয়ে দেওয়ার শক্তি নদীগুলো হারিয়ে ফেলেছে। তারপরও বলেশ্বরের উজানে দেশের ভেতরে নানা রকমের বাঁধ দিয়ে মিঠাপানি আটকানো হচ্ছে।পরিবেশ অধিদপ্তর সূত্র জানায়- গত বছর বলেশ্বর নদে হঠাৎ লবণাক্ততা বেড়ে গিয়েছিল। পরে দেখা যায়, শাখানদী দিয়ে উজানের পানি আসায় বাধা তৈরি হওয়ায় এ অবস্থা তৈরি হয়েছিল।ওই বাধা সেবার অপসারণ করার পর পানির লবণাক্ততা কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে আসে। তবে এ বছর আবার সেই অবস্থা ফিরে এসেছে। সম্প্রতি উজানের আরও অনেক নদীতে লবণের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার খবর আসছে। কীর্তনখোলার পানিতে স্বাভাবিকের চেয়ে চার গুণ বেশি মাত্রার লবণ পাওয়া গেছে।পরিবেশ অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় অফিসের সহকারী বায়োকেমিস্ট মুনতাসির রহমানের উদ্ধৃতিতে দ্য ডেইলি স্টার পত্রিকায় এসেছে, নদীর চরকাউয়া, লঞ্চঘাট ও দপদপিয়া পয়েন্টে গত ৭ মার্চ পানি পরীক্ষা করে ইলেকট্রিক্যাল কন্ডাকটিভিটি (ইসি) পাওয়া গেছে ১৩৬০ মাইক্রো সিমেন্স পার সেন্টিমিটার, যা স্বাভাবিক সময়ে ৩০০ থেকে ৪০০ মাইক্রো সিমেন্স পার সেন্টিমিটার পাওয়া যেত। সাধারণত ইসি ১২০০ পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য ধরা হয়ে থাকে।অনেক আগে সিদ্ধান্ত হয়েছিল- শরণখোলায় পুকুরভিত্তিক ১৮টি পানি পরিশোধনব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে। উপজেলা

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের এখান থেকে কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ এবং আমাদের এখানে প্রচারিত সংবাদ সম্পূর্ণ আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোন প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পূর্ণ দায়ী থাকিবে নিউজ পেরন কারী সাংবাদিক। (মানবিক দৃষ্টি সীমানা ফাউন্ডেশন এর একটি প্রতিষ্ঠান) 
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It