1. admin@drstisimana.com : admin :
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
বাইশারীতে নৌকার মাঝি আলমকে কয়েক শত গাড়ির বহর নিয়ে বরন। শ্রীনগরে কোলাপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি পথ পেল নূরনবী অন্তু। নাইক্ষ্যংছড়ির ২ ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে ৬ মেম্বার পদে ৬৮ জন প্রার্থী ফরম নিলেন। কথাসাহিত্যিক খালেকদাদ চৌধুরীর ৩৬তম প্রয়াণ দিবসে আলোচনা সভা। ফাইতংয়ে জনতার রিক্ত সিক্ত ভালবাসায় নৌকা প্রতীকে শুভযাত্রা ও পথসভা ওমর ফারুক। ফোক গানের জনপ্রিয় লেখক জাকির মাস্টার সপরিবারে সিলেট। কুচাই পট্টি ইউনিয়নে বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজের উদ্বোধন। নওগাঁয় সড়ক দূর্ঘটনায় ভ্যান চালক নিহত, একজন আহত। জলবায়ু পরিবর্তন বাস্তচ্যুতি এবং অভিবাসন বিষয়ক উপজেলা পর্যায়ে সংলাপ। ঝিনাইদহে ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা খুন।

উপকূলীয় অঞ্চল সুবর্ণচরে ব্রি ধানের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি।

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময়: বুধবার, ৫ মে, ২০২১
  • ১৯ বার পড়া হয়েছে:

নোয়াখালীর উপকূলীয় অঞ্চল সুবর্ণচর উপজেলার চরমজিদে প্রথম বারের মতো বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) কর্তৃক পরীক্ষমূলক ভাবে এবার বোরো ধান আবাদে বাম্পার ফলন পেয়ে কৃষকের মূখে হাসি ফুটেছে। উল্লেখ্য, ব্রি’র মহাপরিচালক ড. মা. শাহজাহান কবীর গত বছর ২৮ নভম্বর বিনামূল্য উক্ত বীজ বিতরন করেন। পরবর্তীত ব্রি’র সোনাগাজী কার্যালয় হতে বিনামূল্য সার, বীজ, প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান করা হয়। যাতে করে সুবর্ণচরে প্রথমবারের মতো বোরো ধান আবাদ করে কৃষক বাম্পার ফলন পেয়েছে।

আজ সকালে আবাদকৃত ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ এর উপর চরমজিদে কৃষক সমাবেশ, শস্য কর্তন ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়ছে। উক্ত মাঠ দিবসে প্রায় ১৫০ জন কৃষক-কৃষাণী উপস্থিত ছিলেন। ব্রি’র ফেনী সোনাগাজী আঞ্চলকি কার্যালয়ের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রধান ড. বিশ্বজিৎ কর্মকারের সভাপতিত্বে উক্ত মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নোয়াখালী বারি”র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মহি উদ্দিন চৌধুরী, বিএডিসির নোয়াখালী আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. মাহমুদুল আলম, সুবর্ণচর উপজলো কৃষি অফিসার হারুন অর রশিদ । আরো বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ব্রি’র ফেনী সোনাগাজী কার্যালয়ের র্উধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. নাইম আহমেদ এবং বৈজ্ঞানিক কর্মর্কতা মো. নিয়াজ মোর্শেদ। এছাড়াও সুবর্ণচর উপজেলার ৫ জন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও ব্রি’র বৈজ্ঞানিক সহকারী উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে আগত সকল কর্মকর্তা, অতিথি ও কৃষকসহ ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ ও ব্রি ধান৮৯ এর বীজ উৎপাদন মাঠ পরিদর্শন করা হয় এবং মাঠ দেখে কৃষকগণ এ ধান চাষে ব্যাপক আগ্রহ প্রকাশ করেন। শস্য কর্তন করে ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ ও ব্রি ধান৮৯ এর গড় ফলন পাওয়া যায় যথাক্রমে ৭.১ টন/হে. (২৩ মন/বিঘা), ৬.৯৫ টন/হে. (২৩ মন/বিঘা), ৮.২ টন/হে. (২৬-২৭ মন/বিঘা) এবং ৮.৫ টন/হে. (২৮-৩০ মন/বিঘা)।

মাঠ দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠানে উক্ত গবেষণা কর্মসূচীর সাথে সম্পৃক্ত ব্রি’র প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. বিশ্বজিৎ কর্মকার বলেন, ব্রি কর্তৃক সম্প্রতি আবিষ্কৃত ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ বোরো মৌসুমে অত্যন্ত সম্ভবনাময় জাত। বিশেষ করে এই উপকূলীয় অঞ্চল যেখানে বছররে বেশির ভাগ সময় জমি পতিত থাকে এবং স্থানীয় জাতের ধান আবাদ করে তেমন ফলন পাওয়া যায় না সেখানে উক্ত জাতগুলো খুবই উপযোগী। ফলে অত্র অঞ্চলে এ জাতের আবাদ বৃদ্ধি করে এদেশের খাদ্য নিরাপত্তা আরও টেকসই করে বিদেশে চাল রপ্তানি করা সম্ভব হবে। এ জাত গুলোর ফলন বিশেষ করে ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ এর ফলন জনপ্রিয় জাত ব্রি ধান২৮ এর চেয়ে বিঘা প্রতি গড়ে প্রায় ৪-৫ মন বেশী, জীবনকাল ব্রি ধান২৮ এর চেয়ে মাত্র এক সপ্তাহ বেশী। এ জাতের বিশেষ গুণ হচ্ছে ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ এর গাছ শক্ত, তাই সহজে হেলে পড়ে না, ছড়ায় ধানের সংখ্যা বেশী এবং চিটার সংখ্যা কম। এছাড়া, ব্রি ধান৬৭ লবন সহনশীল জাত।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত কৃষাণী হনুফা ও কৃষক নুর উদ্দীনসহ কৃষকগণ ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৬৭, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ এর বীজ পেয়ে খুবই খুশী এবং তাঁরা এ ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার জন্য অনুরোধ জানান । এলাকার কৃষকগণ এ ধানের অধিক ফলন দেখে তা আবাদে ব্যাপক আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। অতিথিগণ উৎপাদনকৃত সকল ধান বীজ হিসেবে সংরক্ষণ করে কৃষকদের মাঝে বীজ বিনিময় ও বিক্রয়ের মাধ্যমে এ জাতের আবাদ সম্প্রসারণ করতে পরামর্শ দেন।

প্রধান অতিথি ড. মহি উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ব্রি ধান৫৮, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ জাতগুলো সম্প্রসারণের মাধ্যমে দেশের খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণতা অর্জনকে আরও টেকসই করবে এবং দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে ব্রি’র গবেষণা ও সম্প্রসারণ কার্যক্রম আরও জোরদার করনের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। উপজলো কৃষি র্কমর্কতা, মোঃ হারুনুর রশদি বলেন, ব্রি ধান৭৪ এবং ব্রি ধান৮৯ ব্রি’র এক অসাধারণ আবিস্কার। তিনি বলেন আবাদি জমি কমে যাওয়া সত্ত্বেও বর্তমান সরকারের কৃষি বান্ধব নীতির কারনে ১৯৭০-৭১ সালের তুলনায় দেশে ধান উৎপাদন বেড়েছে প্রায় ৩ গুণের বেশি। এ জাত দু’টির আবাদ সম্প্রসারণ করে ধানের উৎপাদন আরও কয়েক গুণ বাড়ানো সম্ভব হবে, যা বাংলাদশেরে খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের এখান থেকে কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ এবং আমাদের এখানে প্রচারিত সংবাদ সম্পূর্ণ আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোন প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পূর্ণ দায়ী থাকিবে নিউজ পেরন কারী সাংবাদিক। (মানবিক দৃষ্টি সীমানা ফাউন্ডেশন এর একটি প্রতিষ্ঠান) 
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It