1. admin@drstisimana.com : admin :
শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
কুমিল্লার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে কি তথ্য দিলেন অভিনেতা আহমেদ শরীফ? সাহিত্য পত্রিকা বোধ এর ২১৭তম মাসিক সাহিত্য আড্ডা অনুষ্ঠিত। ঠাকুরগাঁওয়ে ৪০টি দল নিয়ে শর্টবার ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করলেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা এ্যাপোলো। শ্যামনগর সুন্দরবন প্রেস ক্লাবের মাসিক সভা। কালিয়াকৈরে নৌকার মাঝি হলেন রেজাউল করিম রাসেল। রাজশাহীর বাঘাতে পেয়ারার ক‍্যারেটে ১০০ বোতল ফেন্সিডিলসহ আটক দুই। ময়মনসিংহের ফুলপুরে বিএমএসএফ’র কমিটি গঠন,সভাপতি মিজান সা: সম্পাদক রায়হান। গাজীপুরে আখের বাম্পার ফলনে খুশি কৃষকরা। স্থায়ী জামিন পেলেন সাংবাদিক খায়রুল আলম রফিক। নওগাঁয় র‌্যাবের অভিযানে হেরোইন ও ফেন্সিডিলসহ ৩ জন গ্রেফতার।

খুলনা পুলিশ সুপারের দেওয়া ঈদ উপহার পেলো স্বজন হারানো সেই মীম।

শেখ খায়রুল ইসলাম স্টাফ রিপোর্টারঃ
  • আপডেট সময়: শুক্রবার, ৭ মে, ২০২১
  • ৪২ বার পড়া হয়েছে:

মাদারীপুরের শিবচরে পদ্মা নদীতে স্পিডবোট দুর্ঘটনায় বাবা-মা ও দুই বোন হারানো মীমকে ঈদ উপহার দিয়েছেন খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান। খুলনার তেরখাদা উপজেলার বারাসাত ইউনিয়নের পানতিতা গ্রামে পুলিশ সুপারের দেওয়া ঈদ উপহার মীমকে প্রদান করা হয়েছে। মীম ও তার নানা-নানির হাতে ঈদ উপহার তুলে দেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মো. মামুন অর রশিদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ-সার্কেল) এসএম রাজু আহমেদ ও তেরখাদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. মোশাররফ হোসেন। এ সময় তেরখাদা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এসএম অহিদুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।
তেরখাদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মো. মোশাররফ হোসেন বলেন, মাদারীপুরের শিবচরে পদ্মা নদীতে স্পিডবোট দুর্ঘটনায় বাবা-মা ও দুই বোনকে হারিয়ে মীম এখন বারাসাত ইউনিয়নের পানতিতা গ্রামে তার নানা-নানির বাড়িতে রয়েছে। খুলনার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসানের পাঠানো ঈদ উপহার পেয়ে মীম খুশি। সে নানা-নানির বাড়িতে ভালো আছে। বাবা-মা ও দুই বোনকে হারিয়ে কিছুটা চুপচাপ রয়েছে মীম।
গত ৩ মে পদ্মায় স্পিডবোট ডুবিতে বাবা-মা ও দুই বোনকে হারিয়ে অলৌকিক ভাবে বেঁচে যায় খুলনার তেরখাদা উপজেলার পারখালী গ্রামের শিশু মীম। দুর্ঘটনার পর নদীতে একটি ব্যাগ ধরে ভাসছিল মীম। এ সময় নৌপুলিশের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মীমের বাবা মনির হোসেন, মা হেনা বেগম, ছোট দুই বোন সুমি (৫) ও রুমি (৩) স্পিডবোট দুর্ঘটনায় মারা যান। পরে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মীমকে উদ্ধারকারী নৌপুলিশের কনস্টেবল মেহেদী বলেন, শিশুটিকে নদীতে ব্যাগ ধরে ভাসতে দেখে উদ্ধার করি। তার হাত ও চোখের কাছে সামান্য আঘাতের চিহ্ন ছিল।
গত ৩ মে শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা একটি স্পিডবোট কাঁঠালবাড়ী ঘাটের কাছে এসে নোঙর করে রাখা একটি বাল্কহেডের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এ ঘটনায় ২৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের এখান থেকে কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ এবং আমাদের এখানে প্রচারিত সংবাদ সম্পূর্ণ আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোন প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পূর্ণ দায়ী থাকিবে নিউজ পেরন কারী সাংবাদিক। (মানবিক দৃষ্টি সীমানা ফাউন্ডেশন এর একটি প্রতিষ্ঠান) 
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It