1. admin@drstisimana.com : admin :
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:০৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
নওগাঁয় বঙ্গবন্ধু জাতীয় চাম্পিয়নশীপ ফুটবল খেলার উদ্বোধন। নাসিরনগরে খেলনার প্রলোভনে শিশুকে যৌন নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেফতার-১জন। নওগাঁয় চাচার বিরুদ্ধে ভাতিজাকে খুনের অভিযোগে থানায় মামলা। নরসিংদীতে “৩০ তম আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস ও ২৩ তম জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস” পালিত। আজ ভোরের ঘুমের সময় আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ। জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস উপলক্ষে নাটোরে হুইল চেয়ার ও হেয়ারিং এইড বিতরণ। হাজীগঞ্জে বাস চাপায় ৩ জন নিহত। আমেরিকান প্রবাসীর কম্বল বিতরণ। লামায় পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির দুই যুগ পূর্তিতে আনন্দ র্র‍্যালী। নওগাঁর আদালতে মামলা হলো গাজীপুর সিটি’র বহিস্কৃত মেয়র এর বিরুদ্ধে।

হে প্রবাসী স্বামী! আবার তুমি আসবে ফিরে আমায় কথা দাও।

মোঃ নুরুন্নবী আরব আমিরাত প্রতিনিধি
  • আপডেট সময়: শুক্রবার, ৮ অক্টোবর, ২০২১
  • ১৪১ বার পড়া হয়েছে:

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকেই প্রতিবছর কাজের সন্ধানে হাজারো শিক্ষিত-অশিক্ষিত যুবক মধ্যে প্রাচ্য, ইউরোপ, আফ্রিকা ও আমেরিকায় পাড়ি জমাচ্ছেন। তারা জীবনের গুরত্বপূর্ন সময়টি প্রবাসে ব্যয় করেন। সোনার হরিণের পেছনে ছুটতে ছূটতে অনেক প্রবাসী যুবকের বিয়ের বয়স পার হয়ে যায়। পরিবারের সদস্যদের আহবানে কোন এক সময় বিয়ে করতে দেশে ছুটে যান। দুই মাস অথবা তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেশে গিয়ে পাত্রী দেখতে দেখতেই ছুটির দিনগুলি শেষ প্রান্তে এসে যায়। তাই তাড়াহুড়ো করেই বিয়ের কাজটি সম্পূর্ন করতে হয়। একসময় প্রবাসী পাত্রের অনেক কদর ছিল। বর্তমানে সেই চিত্র পাল্টেছে। বর্তমানে প্রবাসী পাত্রের চাহিদা খুব একটা নাই বললেই চলে। সবাই দেশীয় পাত্রের হাতে কন্যা তুলে দিতে পছন্দ করেন। তাই বলে প্রবাসীরা অবিবাহিত থাকেন না। তাদের জন্য আল্লাহ তায়ালা জীবন-সঙ্গীনী ঠিক করে রেখেছেন এবং তাদের সাথেই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়।

তবে সমস্যার কথা হলো বিয়ের অল্প কিছু দিন পরে নতুন বউয়ের হাতের মেহেদীর রং মুছতে না মুছতে প্রবাসী স্বামীকে আবারও কর্মস্থলে চলে যেতে হয়। আর চলে যাওয়ার মুহুত্বটি খুবই বেদনাদায়। নববধুটি কান্নায় বুক ভাসাতে থাকে। গুনগুন করে গাইতে থাকে‍‍ “সুখ তুমি কি বড় জানতে ইচ্ছে করে”—একসময় নিঃসঙ্গ হয়ে পড়ে। সংসারে স্বামীর অনপুস্থিতিকে মেনে নেই। স্বামী দুরে থাকার কষ্টটাকে ভুলতে থাকে। কোন কোন পরিবারে শশুর-শাশুড়ী, দেবর-ননদের নির্যাতন সহ্য করতে হয়। কয়েকমাস পরেই নিজের মধ্য আরেকজনের অস্তিত্ব খুজে পায়। এই কঠিন সময়ে স্বামী পাশে নেই বলে সারাক্ষণ মন খারাপ করে। তারপর কোন একদিন একটি ফুটফুটে সন্তানের মা হয়।

সন্তানের প্রবাসী বাবাটি কলিজার টুকরার একটি ছবি পাবার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। সন্তানকে আদর করতে না পারার জন্য কাঁদতে থাকে। এই কান্না দেশের কেউ শুনতে পায় না। সন্তান মায়ের আদরে বড় হতে থাকে। বাবার অনাদরে বেড়ে উঠা সন্তান বাবাকে পাবার জন্য ব্যাকুল হতে থাকে। বাবাটি আসছি আসছি বলেই দুই তিন চার বছর পার করে দেয়। কয়েক মাসের ছুটিতে দেশে গিয়ে ভারাক্রান্ত হৃদয় নিয়ে আবারও কর্মস্থলে ফিরে আসতে হয়। এইভাবেই লাখো প্রবাসীদের সংসার জীবন চলছে।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের এখান থেকে কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ এবং আমাদের এখানে প্রচারিত সংবাদ সম্পূর্ণ আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোন প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পূর্ণ দায়ী থাকিবে নিউজ পেরন কারী সাংবাদিক। (মানবিক দৃষ্টি সীমানা ফাউন্ডেশন এর একটি প্রতিষ্ঠান) 
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It