1. admin@drstisimana.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
মুন্সীগঞ্জে পানের দাম কমে যাওয়ায় চাষীদের মাথায় হাত। স্ত্রীর মামলায় সওজের প্রকৌশলী ঝিনাইদহ র‌্যাবের হাতে আটক। কাল থেকে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলেন বির্দশন বড়ুয়া। ঐতিহ্যবাহী সংগঠন ‘ব্লাড ডোনার্স সোসাইটি ভালুকা’ এর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকিতে ব্যাপক প্রস্তুতি। বুড়িগোয়ালিনী নৌকার প্রার্থী সুন্দরবন প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা। শ্রীপুর প্রেসক্লাবের নির্বাচনে নতুন সভাপতি আঃ লতিফ, সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন। ছেলে কে ভর্তি করাতে এসে ট্রেনে কাটা পড়ে প্রাণ গেল পিতার। মহাদেবপুরে নির্বাচনী আচরণবিধি ও আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত। নেত্রকোনায় দাদন ব্যবসায়ী ও অপসাংবাদিকতার বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত।

সাকিব সরকার এর প্রিয় শিক্ষকদের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা।

স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট সময়: বৃহস্পতিবার, ১১ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৫৭ বার পড়া হয়েছে:

সাকিব সরকার বলেন, আমার প্রিয় শিক্ষক আমার প্রিয় মুখ। যেদিন স্কুলের গণ্ডি পেরিয়ে চলে আসলাম সেদিন মনে হলো প্রিয় মানুষটিদের কাছ থেকে অনেক দূরে সরে যাচ্ছি। বাস্তবে দূরে থাকলেও প্রিয় মানুষটিদের কথা সবসময় চলার পথের পাথেয় হয়ে রয়ে যায়।

আমার প্রিয় শিক্ষকদের নাম ইলিয়াস স্যার, নজরুল স্যার, নয়ন স্যার, সিদ্দিক স্যার, আদনান স্যার,নাজমুন্নাহার মেডাম, বিলকিস মেডাম ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক শিক্ষিকা আপনারা হলেন লিডার বানানোর কারিগর।আমার প্রাণ প্রিয় শিক্ষক নাম মোহাম্মদ বজলুর রশিদ স্যারা। শুধু শিক্ষকই নয় একজন ভালো বন্ধুও বটে। সাহসী, ত্যাগী, মেধাবী, কৌশলী, ভদ্র আমার প্রিয় শিক্ষক। ছাত্র হিসেবে ওনার সঙ্গে যত স্মৃতি আছে তা ভোলার মতো নয়। তিনি আমাকে সঠিক মানুষ হওয়ার শিক্ষা দিয়েছেন। তিনি শিখিয়েছেন কীভাবে একজন আদর্শ মানুষ হওয়া যায়। একজন মানুষ একটা সমাজ তথা একটা দেশ কীভাবে উন্নতি সাধন করতে পারে তার শিক্ষাও আমি স্যারের কাছে পেয়েছি। স্যারের মুখের নীতি কথা গুলো ভোলা অসম্ভব। তার শাসন, আদেশ, নিষেধ, উপদেশ সব আজ মনে পড়ে। ইচ্ছে আবার স্যারের কাছে চলে যায়।

সাকিব সরকার আরো বলেন, স্কুলের বেঞ্চে বসে স্যারের লেকচার গুলো নতুনভাবে শুনি। আজ বয়স বাড়াটাও একটা পাপ মনে হয়। যদি বয়স না বাড়তো তাহলে প্রিয় মুখগুলোকে ছেড়ে আসতে হতো না। স্যারের সঙ্গে কত স্মৃতি আছে। একদিন স্যারের গণিত ক্লাসে পড়া পারিনি বলে দাঁড় করে রেখেছিলেন। আমার মতো অনেকেই দাঁড়িয়ে ছিল সেদিন। স্যার আমাকে বেত আনতে পাঠালেন। আমি মনে মনে ভাবছিলাম আমি বেত নিয়ে আসব সেই উছিলায় হয়তো স্যার আমাকে ক্ষমা করে দেবেন। কিন্তু না স্যার আমাকেও বাদ দেয়নি। সবার সঙ্গে আমাকেও পড়া না পারার শাস্তি দিয়েছিলেন। স্যারের অনুপ্রেরণা আমাকে বিমোহিত করতো। স্যার সবসময় আমার নাম করত। আমাকে উৎসাহী করে তুলতেন।

তখন আমি শাস্তির ভয়ে তিন ঘণ্টার জায়গায় ছয় ঘণ্টা পড়াশোনা করতাম। এখনও রেখে দিয়েছি স্যারের সেই ভালোবাসা। সে সময় স্যারের উৎসাহ না পেলে পরীক্ষায় ভালো করা কখন সম্ভব ছিল না। স্যারের তুলনা শুধু স্যার-ই। বইয়ে পড়েছি শিক্ষকেরা মানুষ গড়ার কারিগর। সেটার বাস্তবরূপ আমি বজলুর রশিদ স্যারের কাছে দেখেছি। স্যারের কাজকর্ম, কথাবার্তা, মন মানসিকতা, চিন্তা ভাবনা, আদর সোহাগ সবই আমাকে দারুণভাবে আনন্দিত করত। আমি ছাত্র হিসেবে মোটেও ভালো নই তবুও আমি স্কুলে যে ফলাফল হয়েছিল তার পেছনে স্যারের অবদান অনস্বীকার্য। স্যারের শিক্ষা কেবল পাঠ্য বইয়ে সীমাবদ্ধ ছিল না। স্যার শিক্ষিত হতে বলতেন না! সুশিক্ষিত হওয়ার আহ্বান জানাতেন। একজন ছাত্র কীভাবে পরিপূর্ণ মানুষ হতে পারেন সেটার শিক্ষা আমি স্যারের কাছে পেয়েছি। এটাই আমার জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ পাওয়া। স্যারকে কখনও বলা হয়নি ‘স্যার আপনাকে অনেক ভালোবাসি’। স্যারের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা। অনেক ভালো থাকবেন আপনি। আপনিও আপনার হতে গড়া কারিগরগুলোর জন্য দোয়া রাখবেন যেন আপনার স্বপ্ন পূরণ করে প্রিয় বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে শ্রেষ্ঠ দেশ হিসেবে পরিচিত করতে পারি।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
আমাদের এখান থেকে কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ এবং আমাদের এখানে প্রচারিত সংবাদ সম্পূর্ণ আমাদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে পাওয়া। কোন প্রকার মিথ্যা নিউজ হলে তার জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না সম্পূর্ণ দায়ী থাকিবে নিউজ পেরন কারী সাংবাদিক। (মানবিক দৃষ্টি সীমানা ফাউন্ডেশন এর একটি প্রতিষ্ঠান) 
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It